খালি চোখে সবচেয়ে উজ্জ্বল ধূমকেতু দেখুন

খালি চোখে সবচেয়ে উজ্জ্বল ধূমকেতু দেখুন

 

খালি চোখে এই দশকের সবচেয়ে উজ্জ্বল ধূমকেতু গুলোর একটি ‘সি / 2020 এফ 3’ দেখার সুযোগ রয়েছে পৃথিবীবাসীর।
মার্চ মাসের শেষের দিকে এটি আবিষ্কার করতে ব্যবহৃত স্পেস টেলিস্কোপের নাম অনূযায়ী, ধূমকেতুর পুরো অফিসিয়াল নাম মনিকার হ’ল `সি / 2020 এফ 3 (NEOWISE short for Near Earth Object Wide-field Infrared Survey Explorer)সূর্য থেকে প্রায় ৩১২ মিলিয়ন কিঃমিঃ দূরে একটি ধূমকেতু আবিষ্কার করে। এটি 3 জুলাই সূর্যের নিকটে সবচেয়ে কাছাকাছি পৌঁছেছিল, যা পেরিহেলিওন হিসাবে পরিচিত, এবং যে ধূমকেতুটি এখনও দৃশ্যমান তা আকাশে পর্যবেক্ষকরা স্বস্তির দীর্ঘশ্বাস ফেলছে। অনেক ধূমকেতু আমাদের সূর্যের নিকটবর্তী পদ্ধতির উত্তাপে বাঁচতে পারে না। ধূমকেতু, প্রায়শই “স্নোবোলস” ছাড়ে অনেক সময় হিসাবে বর্ণনা করা হয় শিলা, ধূলিকণা, গ্যাস এবং বরফ দিয়ে তৈরি — এমন একটি সমন্বয় যা সর্বদা চরম তাপমাত্রায় একসাথে থাকে না। ফলে লেজের আকৃতি তৈরি হয়।
তবে সম্প্রতি ধূমকেতুটি সূর্যের দিকে ছুটে আসার কারণে পৃথিবীর উত্তর গোলার্ধে অবস্থিত বেশ কিছু দেশ থেকে (ইতালি, কানাডা, যুক্তরাষ্ট্র ইউরোপ মধ্যপ্রাচ্য আরও কিছু দেশে) খালি চোখে দেখা গিয়েছে বা দেখা যাবে।
বিজ্ঞানীরা ধারণা করেছিল ১৯৯৭ সালের পর ২০২০ সালে পৃথিবীবাসী আরেকটি গ্রেট কমেট দেখার সুযোগ পাবে, তাও আবার লেজ সহ। ২০১১ সালে লাভজয় নামক একটি গ্রেট কমেট খালি চোখে দেখা গিয়েছিল। তবে ১৯৯৭ সালের হ্যাল-বপ (আকাশে ১৮ মাস পর্যন্ত ছিল) এর মত এত বড় আর উজ্জ্বল ছিল না।
লস অ্যাঞ্জেলেসের গ্রিফিথ অবজারভেটরির কিউরেটরি লরা ড্যানলি বলেছেন, “এটি যখন সূর্যের কাছাকাছি আসে, এটি উত্তাপিত হয়, এটি সমস্ত ধরণের উপাদান উড়িয়ে দেয় এবং আপনি একটি দর্শনীয় লেজ দেখতে পান।” “তবে কখনও কখনও তারা পুরোপুরি আলাদা হয়ে যায় এবং তারা অদৃশ্য হয়ে যায়।”
সূর্য গ্যাস এবং ধূলিকণার দীর্ঘ লেজ খেলায় সূর্যের মুখোমুখি হওয়া থেকে নেওয়াইসকে বেঁচে থাকা বলে মনে হচ্ছে। “আমরা ইতিমধ্যে নিকটতম পদ্ধতির পয়েন্টটি পেরিয়ে গিয়েছি, এবং ধূমকেতু এখনও সেখানে রয়েছে,” ড্যানি বলেছেন। “সুতরাং আমরা আরও এক মাস ভাল দেখার আশা করতে পারি’
বেশ কয়েকটি কারণ ধূমকেতুর উজ্জ্বলতা নির্ধারণ করে। সূর্য অতিক্রম করার পরে, এটি এখন আমাদের দিকে তারার আলোকে কম প্রতিফলিত করছে, তবে এটি পৃথিবীর কাছাকাছি চলেছে। যখন আমাদের গ্রহের ৬৪৮ মিলিয়ন মাইলের মধ্যে আসে তখন নীউইউজি ২২ শে জুলাই তার নিকটতম অবস্থানটি তৈরি করবে। এর পরে, এটি সৌরজগতের বাইরের প্রান্তগুলিতে ফিরে যাওয়ার সাথে সাথে ধীরে ধীরে দৃশ্যতা হ্রাস পাবে।
সেরা দর্শনটি ধরতে, এই সপ্তাহে ধূমকেতুটি দেখার জন্য আপনি কি খুব তাড়াতাড়ি উঠে পড়া উচিত, বা যখন সন্ধ্যার আকাশে আরও সুবিধামত অবস্থানে থাকে তখন মাসের শেষের দিকে অপেক্ষা করা উচিত? ধূমকেতুটির অনুষ্ঠানটি মাসব্যাপী হতে পারে এই আশঙ্কায় অনেক আকাশ-নজরদারিরা সকালের অ্যালার্ম সেট করার এবং যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ধূমকেতুটি দেখার পরামর্শ দেয়।

Collect:Eclipse Bangla

About regulartechbd

Check Also

সবাই_মা_কে_ভালবাসি_তাহলে_বৃদ্ধাশ্রমে_মায়েদের_ভীড়_কেনো?

সবাই মা কে ভালবাসি তাহলে বৃদ্ধাশ্রমে মায়েদের ভীড় কেনো?

‘মা’ – ছোট্ট একটা শব্দ, কিন্তু তার বিশালতা অনেক বেশি। সৃষ্টির সেই আদিলগ্ন থেকে মধুর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *