মহাশূন্য সম্পর্কে ১০টি অবাক করা তথ্য

মহাশূন্য সম্পর্কে ১০টি অবাক করা তথ্য

রাতের কালো আকাশের দিকে তাকালে আমাদের মনে নানা প্রশ্ন বাসা বুনে । জানতে চাই, কি আছে ঐ কালো শুন্যের মাঝে ? সেখানে কি আমাদের পৃথিবীর মতো কোন গ্রহ আছে ? সেখানে কি আমাদের মতো মানুষ আছে ? এমন নানা প্রশ্ন মনের মাঝে জাগে । আজকের পোস্টে সেই মহাশূন্য সম্পর্কে ১০টি অবাক করা তথ্য জানব, যেগুলো আপনি হয়ত আগে জানতেন না ।

 

১। মহাশূন্য আমাদের থেকে মাত্র ১ঘন্টা দূরে

টিভিতে মহাশূন্যের কোন ভিডিও ফুটেজ বা ইন্টারনেট থেকে কোন স্থির চিত্র দেখলে আমাদের মনে হয় মহাশূন্য আমাদের থেকে অনেক দূরে । কিন্তু সত্য বলতে, মহাশূন্য আমাদের থেকে মাত্র ১০০ কি.মি. দূরে । যদি মহাশূন্যে যাওয়ার জন্য কোন সলিড রাস্তা থাকত তাহলে সেখানে পৌঁছাতে মাত্র ১ ঘন্টা সময় লাগত । দ্যাটস কুল…!

২। নিরব মহাশূন্য

মহাশূন্য সত্যিকার অর্থে একটি নিরব জায়গা । আপনি সেখানে কোন বিন্দুমাত্র শব্দও শুনতে পারবেন না । কারণ হলো, শব্দ তরঙ্গ স্তানান্তরিত হওয়ার জন্য কোন মাধ্যম দরকার । কিন্তু মহাশূন্যে কোন বায়ুমন্ডল নেই । যার দরুণ, শব্দ তরঙ্গ স্তানান্তরিত হতে পারে না, এবং কোন শব্দ শুনাও যায় না । আপনি বলতে পারেন তাহলে মহাকাশচারীরা কিভাবে কথা বলে ? উত্তর হলো, তারা রেডিও ওয়েভের মাধ্যমে যোগাযোগ করে । রেদিও ওয়েভ মহাশূন্যে ট্রাভেল করতে পারে ।

৩। অমর পায়ের ছাপ

ছবিতে যে পায়ের ছাপটি দেখতে পাচ্ছেন এটা কোন সাধারণ পায়ের ছাপ নয় । অ্যাপোলোতে করে চাঁদে যাওয়ার মহাকাশচারীর পায়ের ছাপ এটি । অবাক করা ব্যাপার হচ্ছে এই ছাপটি ১০০ মিলিয়ন বছর পর্যন্ত এভাবেই থাকবে !! অবাক হচ্ছেন ? ওয়েট, এটা সম্ভব কারণ চাঁদে কোন বায়ুমন্ডল নেই, কোন বৃষ্টি নেই, নেই কোন বাতাস যা ঐ পায়ের ছাপটিকে নষ্ট করতে পারে । সো, চাঁদে মানুষের এই পায়ের ছাপটি অক্ষত অবস্থায় থাকবে লক্ষ লক্ষ বছর ।

৪। মহাশূন্যে আপনি কাঁদতে পারবেন না

ওয়েট, মহাশূন্যে আপনি কাঁদতে পারবেন । কিন্তু পৃথিবীতে কাঁদলে যেমন ইফেক্ট হয়, ঐখানে কাঁদলে তেমন ইফেক্ট পাবেন না । কারণ হলো, আপনার চোখের পানির ফোটাগুলো তো নিচেই পরবে না । সেগুলো আপনার মুখের মাঝেই আটকে থাকবে । হা হা হা ।

৫। মহাশূন্যে বম্ব ফেলা

১৯৬২ সালে ইউনাইটেড স্টেটস একটি ইতিহাস তৈরি করে । তারা পরীক্ষণের জন্য মহাশূন্যে একটি একটি হাইড্রোজেন বম্ব ফাটায় । যা জাপানের হিরোশিমায় নিক্ষিপ্ত বম্বের চেয়ে ১০০গুণ শক্তিশালী ছিল । অবাক করা ব্যাপার হচ্ছে, এত শক্তিশালী বম্ব নিক্ষেপ করার পরও পৃথিবী তা বিন্দুমাত্র টের পায় নি ।

৬। সবচেয়ে ঠান্ডা তারা

রিসেন্টলি নাসা এমন এক তারা আবিষ্কার করেছে যার তাপমাত্রা অতিমাত্রায় কম । তারা এই তারাটির নাম দিয়েছে “Brown Dwarf” । এবং এখন পর্যন্ত সবচেয়ে কম তাপমাত্রার তারা এটি । এর তাপমাত্রা ৯ডিগ্রী ফারেনহাইট থেকে মাইনাস ৫৪ ডিগ্রী পর্যন্ত । পৃথিবী থেকে এর দুরত্ব ৭.২ আলোকবর্ষ ।

৭। মহাশূন্যে অ্যালকোহল

 

কেমন হয় যদি হঠাত করে অ্যালকোহল বৃষ্টি শুরু হয়ে যায় ? পার্টি হয়ে যাবে, তাই তো ? হ্যাঁ, মহাশূন্য আমাদেরকে পার্টির সুযোগ করে দিতে পারে কিন্তু বৃষ্টির না । আমাদের গ্যালাক্সির সেন্টারে প্রচুর পরিমাণে অ্যালকোহল আবিষ্কৃত হয়েছে । যার পরিমাণ, ১০ বিলিয়ন বিলিয়ন বিলিয়ন লিটার । ওকে, নেক্সট টাইম পার্টিতে গেলে এই কথাটি মনে করবেন, আর পৃথিবী থেকে মাত্র ২৬০০০ আলোকবর্ষ দূরে যাওয়ার কথা ভাববেন ।

৮। মহাশূন্যে আবর্জনা

আপনি কি মনে করেন শুধুমাত্র পৃথিবীতেই ময়লা আবর্জনা রয়েছে ? ওয়েল, আবার চিন্তা করেন কারণ ৫ লাখেরও বেশি স্পেস আবর্জনা পৃথিবীর কক্ষপথে প্রতিনিয়ত ঘুরছে । এখন আপনি ভাবতে পারেন, এগুলা কি কোন ক্ষতি করবে না ? হ্যাঁ, এগুলো ক্ষতি করতে পারে । কারণ এগুল ১৭,৫০০ মাইল পার ঘন্টা গতিতে ঘুরছে । দূর্ঘটনাবশত এগুলো স্যাটেলাইটগুলোর বড় ধরণের ক্ষতি করে দিতে পারে ।

৯। মহাশূন্যে জলাধার

পৃথিবী থেকে ১০ বিলয়ন আলোকবর্ষ দূরে পানির বাস্পের আধার পাওয়া গেছে । যেখানে এমন পরিমাণে পানি আছে যা পৃথিবীর টোটাল পানির চেয়ে ১৪০ ট্রিলিয়ন গুণ বেশি । এটি মহাশূন্যের একটি অন্যতম বড় জলাধার । যা সত্যিই অবাক করা বিষয় ।

১০। একাধিক সানসেট এবং সানরাইজ

প্রতিদিন, আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে নভোচারীরা, 15 টি সূর্যাস্ত এবং সূর্যোদয় দেখতে পারে । আপনি যদি সূর্যোদয় এবং সূর্যাস্ত পছন্দ করেন তবে মহাকাশের নভোচারী হওয়ার স্বপ্ন দেখতে পারেন !!

এই ছিল আপনাদের জন্য কিছু জানানোর চেস্টা । আগামি পোস্টে আবার দেখা হবে । ভালো থাকুন, অনেক ভালো ।

আল্লাহ হাফেজ

Source:- armaghplanet.com, theplanet.org, wikipedia.org, theplanet.org, factslides.com, wikimedia.org, mashable.com, factslides.com, nasa.gov

About regulartechbd

Check Also

আপনার আঙ্গুলগুলি আপনাকে আপনার ব্যক্তিত্ব সম্পর্কে অনেক কিছু বলতে পারে। আপনার কী ধরণের আঙ্গুল রয়েছে?

আপনার আঙ্গুলগুলি আপনাকে আপনার ব্যক্তিত্ব সম্পর্কে অনেক কিছু বলতে পারে। আপনার কী ধরণের আঙ্গুল রয়েছে?

এই গবেষণার কিছু চমকপ্রদ ফলাফল রয়েছে! গবেষণা সর্বদা করা হয় এবং এর বেশিরভাগই নজরে থাকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *